Home / বিনোদন / বা’চ্চা হওয়া বাদে কি মে’য়েদের বুকে দু’ধ আসে?

বা’চ্চা হওয়া বাদে কি মে’য়েদের বুকে দু’ধ আসে?

আপনার ডক্টরের উত্তরঃ গ’র্ভধারন কিংবা বাচ্চা হওয়া বাদেও একাধিক কারনে বুকে দু’ধ আসতে পারে। যদিও এ সম্ভবনা খুবই কম, তদুপরি হরমোনের  ভারসাম্যহীনতা কিংবা বিশেষ কোন ঔষধ সেবন কিংবা ব’য়সের কারনেও এমনি ঘটতে পারে।

 

মে’য়েদের স্ত’নে কখন দু’ধ আসে  মে’য়েদের বুক দু’ধ আসার জন্য প্রোল্যাকটিন prolactin নামের এক হরমোন দায়ী। যা এটি মস্তিষ্কের পি’টুইটারি গ্রন্থি থেকে তৈরি হয়।প্রাকৃতিকভাবে মে’য়েদের দু’ধ বড় করার সহজ উপায়! ক্যানসার চিকিৎসায় ব্যবহৃত কিছু উচ্চ ক্ষ’মতা সম্পন্ন ঔষধ যেমন মেটাক্লোপ্যারামাইড (metoclopramide) কিংবা থিওরিডাজাইন (thioridazine)

 

ব্যবহারে, শ’রীরে প্রোল্যাকটিন (prolactin ) হরমোন তৈরী করতে পারে ,যাতে গ’র্ভধারন বাদেও বুকে দু’ধ আসতে পারে। এছাড়া গ’র্ভধারনে শেষের দিকে শ’রীরে এই হরমোনের আধিক্যের জন্য বুকে দু’ধ আসা শুরু করে। এছাড়াও অনেক সময় ব’য়স্ক ম’হিলাদের ক্ষেত্রে গ’র্ভধারন বাদেও বুকে দু’ধ আসতে পারে , তবে তা খুবই সামান্য, এ ঘ’টনাকে চিকিৎসা বিজ্ঞানে ’duct ectasia’ বলে ।

 

গো’পন অ’’ঙ্গ, সোজা কথায় যাকে বলে প্রাইভেট পার্ট। আপনার প্রাইভেট পার্ট কিন্তু আপনার শ’রীরের একটা অ’ত্যন্ত গু’’রুত্বপূর্ণ অ’’ঙ্গ।  আর এমন গু’’রুত্বপূর্ণ অ’’ঙ্গকে আপনি কেমনভাবে যত্নে রাখবেন, সে নিয়ে কিন্তু কোথাও কোনো আলোচনাই হয় না।

 

তাই আপনিও বুঝতে পারেন না ঠিক কেমনভাবে এর যত্ন করা উচিত। আর প্রপার কেয়ারের অভাবে মাঝে মাঝেই দেখা যায় ইনফেকশন। তাই তো? দু’শ্চিন্তা করবেন না। আপনার গো’পন অ’’ঙ্গকে সবসময় কী’’ভাবে পরি’ষ্কার রাখবেন?

 

১. টাইট জামাকাপড় পরা ব’ন্ধ করুন: আপনার যদি সিন্থেটিক মেটিরিয়ালের আন্ডার গারমেন্ট পরার অভ্যেস থাকে, তাহলে তা আজই ত্যা’গ করুন। টাইট আর সিন্থেটিক কাপড় কিন্তু আপনার গো’পন অ’’ঙ্গে বায়ু চলাচলকে বা’ধা দেয়। আর তার ফলে ঘাম জমতে থাকে।

 

এমনিতেই আমা’দের দেশে গরমকালে প্রাইভেট পার্টে ঘাম জমা খুবই বিচ্ছিরি একটা স’মস্যা, তার ওপর আপনি যদি সিন্থেটিক ফেব্রিক ব্যবহার করেন, তাহলে তো আর কথাই নেই! ব্যাকটেরিয়া জমে ইনফেকশন ’’হতে কিন্তু বাধ্য। তাই খোলামেলা সুতির ইনার গারমেন্টস ব্যবহার করুন,

 

যাতে হাওয়া-বাতাস সহ’জে খেলবে, ঘামও বসবে কম। ২. সবসময় পরি’ষ্কার রাখু’ন: আজ্ঞে গো’পন অ’’ঙ্গের ক্ষেত্রে এই জিনিসটা কিন্তু মাস্ট। টয়লেটের পর নিয়ম করে গো’পন অ’’ঙ্গকে জল দিয়ে ধোওয়া কিন্তু দরকার। তবে বেশী ভিজে রাখবেন না। আর আপনার যদি অ’তিরিক্ত ভ্যাজাইনাল ডিসচার্জে’র স’মস্যা থাকে, তাহলেও ভিজে ভাব থেকে ইনফেকশন ’’হতেই পারে।

 

এর জন্য আপনি ‘দাশবাসে’র ঘরোয়া উপায় ট্রাই ক’রতে পারেন। আর গো’পন অ’’ঙ্গের পি.এইচ. লেভেলকে নি’য়ন্ত্রণে রাখা খুবই দরকার। বেশী সাবান বা কেমিক্যাল যু’ক্ত ক্লিনজার ব্যবহার করলে কিন্তু পি.এইচ.-এর ভা’রসাম্যর স’মস্যা ঘ’টে। ফলে স্থা’য়ীভাবে আপনার গো’পনা’’ঙ্গ ক্ষ’তিগ্রস্ত ’’হতে পারে।

 

তাছাড়া বিভিন্ন ইনফেকশন, প্রদাহ তো ’’হতেই পারে। তাই হালকা সাবান দিয়ে গো’পনা’’ঙ্গ পরি’ষ্কার করুন। আর যদি ইনফেকশন হয় বা বাজে স্মেল পান, তাহলে দেরী না করে ডাক্তার দেখান। ৩. ন্যাপকিন নিয়ম করে বদলান: পিরিয়ডের সময় আপনি কি একই ন্যাপকিন ৭-৮ ঘণ্টা ব্যবহার করেন? তাহলেই কিন্তু বি’পদ!

 

টি.ভি.-তে যতই বলুক না কেন ৯-১০ ঘণ্টা একটা প্যাড ব্যবহার করার কথা, আপনি কিন্তু ভুলেও ওই ভুলের চক্করে পা দেবেন না। একই ন্যাপকিন অনেকক্ষণ ব্যবহার করলে গো’পনা’’ঙ্গে রেশ তো ’’হতে পারেই, আর স্বা’স্থ্যের পক্ষেও কিন্তু এটা একদম ভালো না। তাই চেষ্টা করুন ঘণ্টা পাঁচেক ছাড়া ছাড়াই ন্যাপকিন বদলাতে।

 

এমনকি দরকার না হলেও! ৪. ওয়াক্স করেন: গো’পনা’’ঙ্গে হেয়ার রিমুভ করা তো মাস্ট। কিন্তু তাই বলে ওয়াক্স? একদম নয়। এমনিতেই আপনার প্রাইভেট পার্ট খুবই নরম আর সেনসিটিভ একটা জায়গা। আর ওয়াক্সিং-এর ফলে ওই নরম জায়গায় ব্য’থা তো লাগবেই, এমনকি ফুলে গিয়ে ইনফেকশন বা রেশও ’’হতে পারে। আর রেজরও ব্যবহার না করাই ভালো। ওতেও কে’টে যেতে পারে।

 

বরং কাঁচি দিয়ে কে’টে নিন। ৫. যত্নে রাখু’ন: দেখবেন আপনার গো’পন অ’’ঙ্গে যেন কোনো রকম বডি ফ্লুইড লে’গে না থাকে। কারণ ওটা থেকেও ইনফেকশন ছড়াতে পারে। তাই ইন্টারকোর্সের পর সবসময় জায়গাটা ধুয়ে নেবেন মাইল্ড সাবান ব্যবহার করে।

 

আর পরি’ষ্কার করার সময় কিন্তু একদম ঘষাঘষি করবেন না। ওতে কিন্তু নরম চামড়া খুব সহ’জে ছড়ে যেতে পারে। আর জায়গাটাকে শুকনো রাখার জন্য ট্যালকম পাওডার ব্যবহার করুন। স্নান করার পর হালকা করে লা’গিয়ে নিন। দেখবেন একটা সুন্দর ড্রাই ফিলিংস তো আ’সছেই, আর জায়গাটা পরি’ষ্কারও থাকছে।

 

আর হ্যাঁ, যখন তখন যেখানে সেখানে বাথরুম যাওয়া আ’ট’কান। ইনফেকশন কিন্তু ওখান থেকেও ছড়াতে পারে। আর কোনো স’মস্যা হলে তাড়াতাড়ি ডাক্তার দেখাতে ভুলবেন না। আফটার অল আপনার সুস্বা’স্থ্য কিন্তু আপনারই হাতে। তাই প্রাইভেট পার্ট’কে ‘দাশবাস’ টিপসে ভালো রাখু’ন, আর সু’স্থ থাকুন সবসময়।

 

About admin

Check Also

ম’হিলারা কোন ধরনের ছে’লেদের সাথে প’রকিয়া করে।

কথায় আছে ‘মেয়েদের মন নাকি ঈশ্বর ও বুঝতে পারেন না’। মেয়েরা কখন কি চায়, কাকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *