Home / অন্যান্য / মুম্বইয়ের বস্তিতে দিন কাটত চা-শিঙাড়া খেয়ে, আজ সেই বস্তির ছেলে আমেরিকার রোবট গবেষক

মুম্বইয়ের বস্তিতে দিন কাটত চা-শিঙাড়া খেয়ে, আজ সেই বস্তির ছেলে আমেরিকার রোবট গবেষক

আমাদের চারপাশে এমন অনেক ঘটনা ঘটে যা দেখে আমরা অবাক হই। যে কোনও ব্যক্তি যে তার ইচ্ছাশক্তি এবং কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে সাফল্যের শিখরে পৌঁছতে পারে, জয়কুমার বৈদ্য তাঁর জীবন্ত উদাহরণ। এখন

সে মুম্বাইয়ের বস্তি থেকে আমেরিকান গবেষক। সমাজের সর্বনিম্ন স্তর থেকে উঠে এসেছে সে। ছোটবেলা থেকেই জয়কুমার মায়ের সাথে মুম্বাইয়ের কুরলা বস্তিতে থাকত। এতটাই অভাব ছিল যে কখন কপালে খাবার জুটত তো আবার কখনও না খেয়ে রাত কাটাতে হত।

এমনও দিন গেছে যে তাকে সিঙ্গারা – বড়পাও খেয়ে দিন কাটাতে হয়েছে। তার পড়াশোনায় যাতে কোনও ক্ষতি না হয় তাঁর মা যখন যে কাজ পেয়েছিলেন তাই করেছেন। একসময় স্কুলের ফি দিতে না পারায় তার রেজাল্ট আটকে দেওয়া হয়েছিল এবং তাকে গাড়ি চালানো শিখতে বলা হয়েছিল।

সেইসময় একটি একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা জয়কুমারের পাশে এসে দাঁড়ায়। সেই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা তার স্কুলের মাইনে মিটিয়ে দেয় ও উচ্চ শিক্ষার জন্য লোনও দেয়। জয়কুমার একটু বেশি রোজগারের জন্য একটি টিভি

সারাইয়ের দোকানে ৪ হাজার টাকার বিনিমেয় কাজের পাশাপাশি স্থানীয় পড়ুয়াদের পড়ানো শুরু করে। সে বিদ্যালয়ের গণ্ডি পেরিয়ে সোমাইয়া অব ইঞ্জিনিয়ারিং থেকে ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করেন।

কলেজে পড়াকালীনই জয়কুমার আমেরিকা।এন্ড টার্বো কোম্পানি থেকে কাজের জন্য ডাক পায়। ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করার পরে সে টাটা ইনস্টিটিউট অফ ফান্ডামেন্টাল রিসার্চে ৩০,০০০ টাকা বেতনের চাকরি পায়। এখানে সে তিন বছর চাকরি করে।

পিএইচডি করতে করতে জয়কুমারের দুটো রিসার্চ পেপার একটি আন্তর্জাতিক মানের জানালে প্রকাশ পায়। এরপর আর তাকে পিছনে ফিরে তাকাতে হয় নি। সে ইউনিভার্সিটি অফ ভার্জিনিয়ায় রিসার্চ অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসাবে ডাক পায়।

সেই পদে যোগদানের পর তার মাসিক স্টাইপেন্ড হয় ২,০০০ ডলার যা ভারতীয় মুদ্রায় ১ লক্ষ ৪৩ হাজার টাকা। খুব তাড়াতাড়ি জয়কুমার তার মাকেও নিয়ে যাবে আমেরিকায়। এই জীবন সংগ্রামে জয়কুমারের

সফলতার গল্প বহু মানুষকে জীবনে এগিয়ে যাওয়ার অনুপ্রেরণা দেবে। আরও পড়ুন :  ফুটপাথে শুয়েও কাটিয়েছেন রাত! ঘৃণা ও অপমান সহ্য করেও ভারতের প্রথম কিন্নর বিচারপতি জয়িতা

 

About admin

Check Also

স্ত্রী’কে সারা রাত স’হ’বাসে তৃপ্তি দিন ১ টু’করো মুখে নিয়ে

সুস্থ দে’হ ও সুন্দর মন পাওয়ার আকাঙ্খা সবারই থাকে। আজীবন তারুণ্য ধরে রাখতে এবং যৌ’বনের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *